ঢাকা ০২:৩৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ :
Logo হাজারো অসহায়ের মাঝে ইফতার ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ করলেন মেয়র Logo কল্পলোক আবাসিক মসজিদের জায়গা ব্যক্তির নামে বরাদ্দ বাতিলের দাবীতে মানববন্ধন Logo নিঃস্বার্থে মানব সেবা গ্রুপের ঈদ উপলক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ  Logo ফুলপুরে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট,ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন হিন্দু বৌদ্ধ ঐক্য Logo রামপুর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মোঃ আবুল কাশেমের মৃত্যুতে Logo Logo “মুসলিম কমিউনিটি মৌলভীবাজার” এর তাৎপর্য‍‍` শীর্ষক আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo মশা নিয়ন্ত্রণে গবেষণার জন্য গবেষণাগার চালুর ঘোষণা দিয়েছেন Logo বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হৃদয়ে -চেতনায় বাংলাদেশ Logo সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন

সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন

নিজস্ব প্রতিবেদন
  • আপডেট সময় : ০৭:০৯:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০২৪ ১৯ বার পড়া হয়েছে
নানা আয়োজনে সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে পালিত হলো স্বাধীনতার স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের  ১০৪তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় সংগীত পরিবশেন, কবিতা আবৃত্তি, দোয়া  ও বিশেষ আলোচনা সভা। আজ বুধবার বেলা ১.৩০ মিনিটে  ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাস বায়েজিদ আরেফিন নগর হল রুমে কোষাধ্যক্ষ ড. শরীফ আশরাফউজ্জামানের সভাপতিত্বে    আয়োজিত বিশেষ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেল হক।
বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. শরীফুজ্জামান, কলা, সমাজবিজ্ঞান ও আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক চৌধুরী মোহাম্মদ আলী এবং আইকিউএসি’র পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. শহকতুল মেহের।  আরও উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষবৃন্দসহ কর্মকতার্রা। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, দেশের জনগণের অধিকার আদায় ও স্বাধীনতার জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অধিকাংশ সময় কারা বরণ করতে হয়েছে।
এ দেশে বঙ্গবন্ধুর মতো একজন নেতার জন্ম না হলে বাংলাদেশ নামের কোনো স্বাধীন দেশ জন্ম হতো কি না, সন্দেহ ছিল? বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধু অভিন্ন। সকল অর্থেই তিনিই বাংলাদেশ। আমাদের উচিৎ মহান এ নেতাকে কোনো রাজনৈতিক স্বার্থে বিভক্ত না করে শ্রদ্ধা ভরে তাঁর দেশ প্রেমকে স্মরণ করা। যদি তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয় তাহলে এ আত্মত্যাগ প্রকৃত মর্যাদা পাবে। আমাদেরকে এ ধরনের দিবস গুলো বড় পরিসরে পালন করে দেশের প্রকৃত ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে যাতে তারা এ বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করতে পারে।  পরে বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্টে নিহত পরিবারের সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ, জাতি, প্রতিষ্ঠানের  সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ মুহাম্মদ জালাল উদ্দীন আল আযহারী।
ছবির ক্যাপশন: বক্তব্য রাখছেন প্রধান অতিথি উপাচার্য অধ্যাপক প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেল হক।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন

আপডেট সময় : ০৭:০৯:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০২৪
নানা আয়োজনে সাউদার্ন ইউনিভার্সিটিতে পালিত হলো স্বাধীনতার স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের  ১০৪তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় সংগীত পরিবশেন, কবিতা আবৃত্তি, দোয়া  ও বিশেষ আলোচনা সভা। আজ বুধবার বেলা ১.৩০ মিনিটে  ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাস বায়েজিদ আরেফিন নগর হল রুমে কোষাধ্যক্ষ ড. শরীফ আশরাফউজ্জামানের সভাপতিত্বে    আয়োজিত বিশেষ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেল হক।
বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. শরীফুজ্জামান, কলা, সমাজবিজ্ঞান ও আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক চৌধুরী মোহাম্মদ আলী এবং আইকিউএসি’র পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. শহকতুল মেহের।  আরও উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষবৃন্দসহ কর্মকতার্রা। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, দেশের জনগণের অধিকার আদায় ও স্বাধীনতার জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অধিকাংশ সময় কারা বরণ করতে হয়েছে।
এ দেশে বঙ্গবন্ধুর মতো একজন নেতার জন্ম না হলে বাংলাদেশ নামের কোনো স্বাধীন দেশ জন্ম হতো কি না, সন্দেহ ছিল? বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধু অভিন্ন। সকল অর্থেই তিনিই বাংলাদেশ। আমাদের উচিৎ মহান এ নেতাকে কোনো রাজনৈতিক স্বার্থে বিভক্ত না করে শ্রদ্ধা ভরে তাঁর দেশ প্রেমকে স্মরণ করা। যদি তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয় তাহলে এ আত্মত্যাগ প্রকৃত মর্যাদা পাবে। আমাদেরকে এ ধরনের দিবস গুলো বড় পরিসরে পালন করে দেশের প্রকৃত ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে যাতে তারা এ বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করতে পারে।  পরে বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্টে নিহত পরিবারের সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ, জাতি, প্রতিষ্ঠানের  সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ মুহাম্মদ জালাল উদ্দীন আল আযহারী।
ছবির ক্যাপশন: বক্তব্য রাখছেন প্রধান অতিথি উপাচার্য অধ্যাপক প্রকৌশলী মো. মোজাম্মেল হক।